শান্তি বর্ষিত হোক ভাষাশহীদদের আত্মায় - আজকের শিক্ষা || ajkershiksha.com

শান্তি বর্ষিত হোক ভাষাশহীদদের আত্মায়

SS iT Computer

প্রতি বছরই ফেব্রুয়ারি এলে ভাষার প্রতি টান বেড়ে যায়। ভীষণ মমতা অনুভূত হয়। অস্তিত্বের শিকড়ে জমে থাকা একরাশ শ্রদ্ধা আবার নতুন চেতনায় উজ্জীবিত হয়। মনের গহিনে লুকিয়ে থাকা অকুণ্ঠ ভালোবাসা ক্রমেই আচ্ছন্ন করে তনুমন। সর্বত্রই বিরাজ করে আনন্দঘন এক পরিবেশ। কাক-ভোরে পাখির কূজনকে বড় পরিচিত লাগে। সমুদ্রে আছড়ে পড়া ঊর্মিমালাকে বেশ উচ্ছ্বসিত মনে হয়। ঝরনার কলকল ধ্বনি ইথারে ইথারে বাষ্প হয়ে এক অনবদ্য মুহূর্ত তৈরি করে। অপরাহ্ণের সূর্যের লাল গুঁড়ো গুঁড়ো আলোর ঝিলিক পৃথিবীর আকাশকে রক্তিম করে তোলে। রাতের বিদঘুটে আঁধারের মাঝে চাঁদের নিভুনিভু আলোয় দারুণ প্রফুল্লতা বোধ জন্মায়। কারণ আল্লাহতায়ালা কোরআনে ইরশাদ করেন, ‘দয়াময় আল্লাহ! তিনিই শিক্ষা দিয়েছেন কোরআন। তিনিই সৃষ্টি করেছেন মানুষ। তিনিই তাকে ভাব (ভাষা) প্রকাশ করার শিক্ষা দিয়েছেন।’ সুরা আর রহমান আয়াত ১-৪।

আলোচ্য আয়াতে মানুষের সৃষ্টির সঙ্গে ভাষার ব্যবহারের সুস্পষ্ট ইঙ্গিত রয়েছে। তাই মাতৃভাষা মানুষের একটি সৃষ্টিগত অধিকারও বটে। সুতরাং আশা করা যায় মাতৃভাষা রক্ষার আন্দোলনে যারা নিজেদের জীবন বিসর্জন দিয়েছেন আল্লাহ তাদের শহীদি মর্যাদা দান করবেন।

আমাদের দেশে ফেব্রুয়ারি এলেই শহরের অলিগলিতে বাংলা বর্ণমালা দেখা যায়। এসব দেখলে ফের জীবন্ত হয়ে ওঠে বায়ান্নর স্মৃতি। তখন পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের শতকরা ৫৬ জনের মুখের ভাষা ছিল বাংলা। তার পরও শাসকগোষ্ঠী উর্দুকে চাপিয়ে দিয়েছিল নিরীহ জনগণের ওপর। তারা কেড়ে নিতে চেয়েছিল মায়ের ভাষাকে। কিন্তু বীরের জাতি বাঙালি তা হতে দেয়নি। তাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায়। প্রতিহত করে তাদের অসৎ মনোবাঞ্ছাকে। বুকভরা সাহস নিয়ে পা রাখে রাজপথে। মুষ্টিবদ্ধ হাতে তুলে ধরে বাংলা বর্ণমালা। চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে তাদের ঔদ্ধত্য তর্জনী। ঝাঁজালো সেøাগানে মুখরিত হয় ঢাকার রাজপথ। অধিকার আদায়ের গলা ফাটা চিৎকারে কেঁপে ওঠে আকাশ-বাতাস। পদভারের ঝাঁকুনিতে থরথর কাঁপতে থাকে মাটি। ‘রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই’ স্লোগান নিয়ে এগোতে থাকে দামাল ছেলেরা। পাকিস্তানি পুলিশ সেদিন গুলি চালিয়েছিল তাদের বুকে। রক্তে রঞ্জিত হয়েছিল ঢাকার রাজপথ। লুটিয়ে পড়ে বরকত, সালাম, রফিক, জব্বারের জীবন্ত তরতাজা দেহ। বুকের রক্ত দিয়ে সেদিন তারা ছিনিয়ে এনেছিল বিজয়ের জয়মাল্য। ভাষা আন্দোলনের মাসে সবাই মিলে আমরা অল্লাহর দরবারে দুই হাত তুলে ফরিয়াদ জানাব, তিনি যেন ভাষাশহীদদের কবুল করে নেন। জয় হোক ভাষার। শহীদদের আত্মায় শান্তি বর্ষিত হোক।

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

বাছাইকৃত সংবাদঃ

Comments are closed.