মুজিববর্ষে নতুন একাডেমিক ভবন পাচ্ছে ৩৩৫ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান - আজকের শিক্ষা || ajkershiksha.com

মুজিববর্ষে নতুন একাডেমিক ভবন পাচ্ছে ৩৩৫ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান

SS iT Computer

মুজিববর্ষে নতুন একাডেমিক ভবন পাচ্ছে ৩৩৫ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান: মুজিববর্ষ উপলক্ষে ‘বিশেষ উদ্যোগে’ সারাদেশে ৩৩৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নতুন শিক্ষা ভবন নির্মাণ করেছে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর (ইইডি)। এসব একাডেমিক ভবন উদ্বোধনের প্রক্রিয়া শুরু করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। নবনির্মিত ভবনের মধ্যে হাইস্কুল ১০০টি, কলেজ ১০০টি ও মাদ্রাসা ১০০টি এবং কারিগরি শিক্ষা কলেজ ৩৫টি। ইইডির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, কোন প্রতিষ্ঠান চার-পাঁচতলা, কোনটিতে একতলা বা দু’তলাকে ঊর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণ করা হয়েছে। রোববার (৩১ অক্টোবর) দৈনিক সংবাদ পত্রিকায় প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা যায়।

প্রতিবেদনে আরও জানা যায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট শাখার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মুজিববর্ষেই নবনির্মিত ওইসব শিক্ষা ভবন উদ্বোধনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। ভবনগুলো উদ্বোধনের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে সময় চাওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

অবকাঠামো উন্নয়ন কার্যক্রম অধিকতর গতিশীল করার লক্ষ্যে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরে গত দশ মাসে এগার দফা পদোন্নতি দেয়া হয়েছে। আগের প্রশাসনের ঝুঁলিয়ে রাখা পদোন্নতিও এবার দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে দুইজন নির্বাহী প্রকৌশলীকে তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী হিসেবে পদোন্নতি ও একজনকে তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলীর চলতি দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

এছাড়া ৩০ জন সহকারী প্রকৌশলীকে নির্বাহী প্রকৌশলীর চলতি দায়িত্ব প্রদান, দশজন উপসহকারী প্রকৌশলীকে সহকারী প্রকৌশলী পদে পদোন্নতি, একজনকে প্রশাসনিক কর্মকর্তা পদে পদোন্নতি, ৩২ জনকে উচ্চমান সহকারী পদে পদোন্নতি, ১২৪ জন সহকারী প্রকৌশলীর (সিভিল) পদে জেষ্ঠ্যতা প্রদান, নয়জন সহকারী প্রকৌশলীর (বিদ্যুৎ) চাকরি স্থায়ীকরণ, ১১ জন ১৬ গ্রেডের কর্মচারীর স্থায়ীকরণ, ২০ গ্রেডের ১৭ জন কর্মচারীর খসড়া জেষ্ঠ্যতার তালিকা প্রণয়ন, ৭৭ জন সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) পদে নিয়োগ প্রদান এবং ‘ইইডির কর্মচারী নিয়োগ বিধিমালা, ২০২১’ প্রণয়ন করা হয়েছে। এই বিধিমালার গেজেটও ইতোমধ্যে জারি করা হয়েছে।

নিয়োগে আবেদনের রেকর্ড

ইইডি তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর এক হাজার ১৯৪টি শূন্যপদে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করেছে। এসব পদে নিয়োগ পেতে আবেদন করেছেন ছয় লাখ ৫১ হাজার ৬৩৪ জন। পদগুলোর মধ্যে হিসাবরক্ষক, কম্পিউটার অপারেটর, উচ্চমান সহকারী, অফিস সহায়ক, নিরাপত্তাপ্রহরী, স্টোরকিপার অন্যতম। এর মধ্যে ৪র্থ শ্রেণীর ৫১৫টি অফিস সহায়কের (এমএলএসএস) পদে নিয়োগ পেতে আবেদন করেছেন দুই লাখ ৮৫ হাজারেরও বেশি চাকরি প্রত্যাশী।

ইইডির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বিপুলসংখ্যক নিয়োগ প্রত্যাশীর আবেদন এবং স্বচ্ছ ও বিতর্কমুক্তভাবে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার লক্ষ্যে এই কার্যক্রমের কারিগরি সহায়তার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ^বিদ্যালয়কে (বুয়েট)। বুয়েট কর্তৃপক্ষ নিয়োগ পরীক্ষার উত্তরপত্র মূল্যায়ন ও ফলাফল প্রস্তুত করবে; আর ইইডি ফল প্রকাশ করবে। এর মধ্যে শুক্রবার (২৯ অক্টোবর) হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার পদগুলোর নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। অন্যান্য ক্যাটাগরির নিয়োগ পরীক্ষাও প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

গত বছরের ১৯ সেপ্টেম্বর শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর ১২টি ক্যাটাগরিতে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। এর মধ্যে তৃতীয় শ্রেণীর ১০টি ক্যাটাগরিতে ৬৬৮টি পদের বিপরীতে আবেদন পরেছে তিন লাখ ৬২ হাজার ২৬৩টি, ৪র্থ শ্রেণীর অফিস সহায়কের ৫১৫টি পদের বিপরীতে আবেদন পড়েছে দুই লাখ ৮৫ হাজার ২৮৬টি এবং নিরাপত্তাপ্রহরীর (৪র্থ শ্রেণীর) ১১টি পদের বিপরীতে আবেদন পড়েছে চার হাজার ৮৫টি।

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

বাছাইকৃত সংবাদঃ

Comments are closed.