ফেরদৌস জামানকেই নিয়োগ দিচ্ছে ইউজিসি, তদন্ত কমিটি হয়নি - আজকের শিক্ষা || ajkershiksha.com

ফেরদৌস জামানকেই নিয়োগ দিচ্ছে ইউজিসি, তদন্ত কমিটি হয়নি

SS iT Computer

ফেরদৌস জামানকেই নিয়োগ দিচ্ছে ইউজিসি, তদন্ত কমিটি হয়নি: অভিযোগের তদন্ত না করে নিয়োগ দিতে মরিয়া ইউজিসি। অথচ ঘুষ নেয়ার অভিযোগ দুইবার বরখাস্ত হওয়া বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) কর্মকর্তা ফেরদৌস জামানের বিরুদ্ধে উত্থাপিত কিছু অভিযোগ আমলে নিয়ে এ বিষয়ে তদন্তের নির্দেশনা দিয়েছিল শিক্ষা মন্ত্রণালয়। গত ২৩ ফেব্রুয়ারি মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ থেকে ইউজিসির চেয়ারম্যানকে এ বিষয়ে একটি চিঠি পাঠানো হলেও অদ্যাবধি তদন্ত কমিটিই গঠিত হয়নি।

অভিযোগকারীরা বলেছেন, দুদকে অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে। ইউজিসির সচিব নিয়োগের বিজ্ঞাপন, নিয়োগ বোর্ডসহ যাবতীয় বিষয় খতিয়ে দেখার আবেদন জানানো হয়েছে দুদকে। ফেরদৌসকে ইউজিসির সচিব হিসেবে নিয়োগ দিতে কমিশনে সভা বসছে আজ রোববার।

২৩ ফেব্রুয়ারির শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বেসরকারি মাধ্যমিক-১ শাখার উপসচিব ড. মো. ফরহাদ হোসেন স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সচিব (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ড. ফেরদৌস জামানের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগপত্রের ছায়ালিপি প্রেরণ করা হলো। অভিযোগগুলো তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণপূর্বক বিভাগকে অবহিত করার জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সম্প্রতি সানোয়ার হোসেন নামের এক ব্যক্তি ইউজিসির সচিব পদে অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা ঊর্ধ্বতন এ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে তিন পৃষ্ঠার একটি অভিযোগপত্র জমা দেন। সেখানে ড. ফেরদৌস জামানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম, দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ তুলে ধরা হয়।

অভিযোগকারী দাবি করেন, অতীতে বিভিন্ন ধরনের আর্থিক ও প্রশাসনিক অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে এ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে একাধিক তদন্ত পরিচালনা হয়। সেসব তদন্তে অনেক অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় কমিশনের ঊর্ধ্বতন এ কর্মকর্তাকে শাস্তির আওতায়ও আনা হয়।

সানোয়ার হোসেন ড. ফেরদৌস জামানের বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক কিছু অভিযোগও উত্থাপন করেছেন। এর একটি খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাজেট সম্মানি গ্রহণ বিষয়ে। এ বিষয়ে চিঠিতে বলা হয়েছে, কমিশনের সচিব (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ও পরিচালকের মতো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকা সত্ত্বেও খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাজেট সম্মানি বাবদ দুবার মূল বেতনের সমপরিমাণ অর্থ গ্রহণ করেছে, যার আইনত কোনো সুযোগ নেই। কেননা অর্থ মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী পঞ্চম গ্রেডের ঊর্ধ্বে কোনো কর্মকর্তা এ ধরনের বাজেট সম্মানি নেয়ার সুযোগ নেই। এছাড়া কমিশনের দায়িত্বে থেকে বেশ কয়েকজন নিকট আত্মীয়কে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি দেয়ার অভিযোগ তোলা হয়েছে এ কর্মকর্তা বিরুদ্ধে।

ফেরদৌসের বিরুদ্ধে ঘুষ নেয়ার লিখিত অভিযোগ টিআইবির হাতে রয়েছে। টিআইবি কয়েকবছর আগে তা শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও ইউজিসিতে জমা দেয়। এছাড়াও বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে ফেরদৌসের বিরুদ্ধে।

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

বাছাইকৃত সংবাদঃ

Comments are closed.