প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের বাড়ির কাজ : শিক্ষকদের তদারকি শুরু – আজকের শিক্ষা || ajkershiksha.com

প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের বাড়ির কাজ : শিক্ষকদের তদারকি শুরু

করোনার থাবায় এক বছরের বেশি সময় ধরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। এ পরিস্থিতে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বাড়ির কাজ দেয়া শুরু হয়েছে। জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা অ্যাকাডেমি প্রণীত ‘অন্তর্বর্তীকালীন পাঠ পরিকল্পনা’ অনুসারে শিক্ষার্থীদের এ ওয়ার্কশিট বা বাড়ির কাজ বিতরণ শুরু হয়েছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পড়ালেখায় ব্যস্ত রাখতে ও ঝরে পড়া রোধে অনলাইন ক্লাসের পাশাপাশি বাড়ি বাড়ি গিয়ে শিক্ষার্থীদের হাতে পৌছে দেওয়া হচ্ছে হোম ওয়ার্ক শিট। সেই সাথে সীমিত পরিসরে খোলা আকাশের নিচেই কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থীদের বসিয়ে পড়া ও বুঝিয়ে দিচ্ছেন শিক্ষকরা।

তবে, বাড়ি বাড়ি গিয়ে পাঠদান তদারকির বিরোধীতা করছেন শিক্ষকরা। তাদের মতে, এতে করোনার সংক্রমণের ঝুঁকি আরো বাড়াবে এবং শিক্ষকরা হেনস্তার শিকার হবে।

শিক্ষকরা শিক্ষাডটকমকে জানিয়েছেন, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের আলোকে সারাদেশে চলমান কার্যক্রমের অংশ হিসেবে যেসব শিক্ষার্থীদের গুগলমিটের মাধ্যমে অনলাইন ক্লাসে সংযুক্ত করা সম্ভব হচ্ছেনা তাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে হোম ওয়ার্কশিট বিতরণ করা হচ্ছে। পরবর্তীতে শিক্ষকরা সার্বিকভাবে তাদের বাড়ির কাজের তদারকি করছেন।

সোমবার (২৪ মে) নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার বাবুহাট মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের হাতে হোম ওয়ার্ক শিট বিতরণ করেন স্কুলের সহকারী শিক্ষক লায়লা আরজুমান, মাসুমা জেসমিন ও যুথী দত্ত রায়।

ওয়ার্কশিট পেয়ে বাবুরহাট মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী মাহফুজার রহমান মেরাজ দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, গ্রামীণ পর্যায়ে অনলাইন ক্লাস করা খুবই কঠিন। হোমওয়ার্ক শিটের মাধ্যমে আমাদের বাড়ির কাজ দেওয়া হয়েছে। আমরা এখন পড়ালেখায় মনোযোগী হতে পারবো।

বাবুরহাট মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আজিজুল ইসলাম দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর, উপজেলা শিক্ষা অফিসার ও সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার স্যারদের নির্দেশক্রমে শিক্ষার্থীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে আমরা হোমওয়ার্ক শিট পৌঁছে দিচ্ছি। এছাড়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের সচেতন করছি। আমার স্কুলের ৫২০ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে প্রায় সকল শিক্ষার্থীর বাড়িতে গিয়ে হোম ওয়ার্ক শিট পৌছে দেওয়া হয়েছে।

ডিমলা উপজেলা শিক্ষা অফিসার স্বপন কুমার দাস দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, শিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশক্রমে অনলাইন ও অফলাইন দুই পদ্ধতিতে শিক্ষার্থীদের পড়ালেখায় মনোযোগী করার চেষ্টা করা হচ্ছে। যাদের অনলাইনে আনা সম্ভব হচ্ছেনা তাদের বাড়ি-বাড়ি গিয়ে হোম ওয়ার্ক শিট বিতরণ করা হচ্ছে। এতে সংক্ষিপ্তভাবে সব বিষয় সন্নিবেশিত করা হয়েছে।

এর আগে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য সপ্তাহভিত্তিক পাঠ পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছে সরকার। জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা অ্যাকাডেমি (নেপ) ‘অন্তর্বর্তীকালীন পাঠ পরিকল্পনা, ২০২১‘ প্রণয়ন করেছে। তা অনুসারে, মাঠ পর্যায়ের শিক্ষা কর্মকর্তারা ও শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের ওয়ার্কশিট তৈরি করেছেন। ওয়ার্কশিট অনুসারে শিক্ষার্থীরা বাড়ির কাজ করবে এবং তা স্কুলে জমা দেবে।

অধিদপ্তরের সূত্রে জানা গেছে, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিখন-শেখানো ঘাটতি পূরণকল্পে গত ১৫ এপ্রিল প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সিদ্ধান্ত মোতাবেক অন্তর্বর্তীকালীন পাঠ পরিকল্পনা ২০২১ (লেসন প্ল্যান) সুষ্ঠু বাস্তবায়নের জন্য ওয়ার্কশিট ও অ্যাক্টিভিটিশিট প্রণয়ন সংক্রান্ত বিষয়ে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা অ্যাকাডেমির (নেপ) মহাপরিচালককে আহ্বায়ক করে ১৫ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। ওই কমিটির সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতে প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের অধিকাংশ শিখন ফল অর্জনের বিষয়টি বিবেচনায় রেখে দুই সপ্তাহের কর্ম পরিকল্পনাসহ ওয়ার্কশিট ও অ্যাক্টিভিটিশিট (পরীক্ষামূলক বাড়ির কাজ) প্রণয়ন করা হচ্ছে।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   

আপনার মতামত প্রকাশ করুন