নির্যাতনে জড়িত থাকায় ঢাবি শিক্ষার্থীকে হল থেকে বহিষ্কার - আজকের শিক্ষা || ajkershiksha.com

নির্যাতনে জড়িত থাকায় ঢাবি শিক্ষার্থীকে হল থেকে বহিষ্কার

SS iT Computer

নির্যাতনে জড়িত থাকায় ঢাবি শিক্ষার্থীকে হল থেকে বহিষ্কার: মো. সিফাতুল্লাহ সিফাত নামে এক শিক্ষার্থীকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) মাস্টারদা সূর্য সেন হল থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করেছে হল প্রশাসন। তার বিরুদ্ধে হলের আরেক শিক্ষার্থী কাজী পরশ মিয়াকে নির্যাতনে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে।

সোমবার হল প্রভোস্ট অধ্যাপক মকবুল হোসেন ভূঁইয়ার সই করা এক বিজ্ঞপ্তি থেকে এসব তথ্য জানা যায়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পূর্বপর ও বর্তমান একই ঘটনার ধারাবাহিকতায় হল প্রশাসন বিব্রত। এতে আবাসিক ছাত্রদের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। একজন ছাত্র কর্তৃক এ ধরনের ঘটনা ঘটানো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধি লঙ্ঘন, মর্যাদা ও আইনের পরিপন্থী।

এতে আরও বলা হয়, উল্লিখিত ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সিফাতকে হল থেকে বহিষ্কার করা হলো। ভবিষ্যতে তাকে হলে অবস্থান করতে দেখা গেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধি অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এর আগে, গত ১৩ ডিসেম্বর হলের ৩৫১ নম্বর কক্ষে নির্যাতনের শিকার হয়ে উইমেন অ্যান্ড জেন্ডার স্টাডিজ বিভাগের ২০১৬-১৭ সেশনের শিক্ষার্থী সিফাতুল্লাহ সিফাতের বিরুদ্ধে হল প্রশাসনের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন ফরাসি ভাষা ও সংস্কৃতি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী কাজী পরশ।

অভিযোগের ভিত্তিতে গত ১৪ ডিসেম্বর সূর্য সেন হলের সিনিয়র আবাসিক শিক্ষক আহম্মদ উল্লাহকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন সহকারী আবাসিক শিক্ষক অধ্যাপক মোহাম্মদ মোবারক হোসেন ও অধ্যাপক সাইফুল্লাহ আকন।

তদন্ত কমিটি সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী ও অভিযুক্তসহ সবার সঙ্গে কথা বলে নির্যাতনে সিফাতের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে। তাই তদন্ত শেষে তাকে হল থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের সুপারিশ করা হয়েছে। এ প্রতিবেদন প্রক্টর অফিস, উপাচার্য কার্যালয়সহ সংশ্লিষ্ট দফতরে জমা দেওয়া হয়েছে।

সিফাতুল্লাহর বিরুদ্ধে এর আগেও একাধিকবার শিক্ষার্থী নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে। গত ৮ নভেম্বর রাতভর দুই শিক্ষার্থীকে নির্যাতনের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়। দুই নির্যাতিত শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক একেএম গোলাম রব্বানীর কাছে লিখিত অভিযোগও করেন। পরে হল প্রভোস্ট অধ্যাপক মকবুল হোসেন ভূঁইয়ার মাধ্যমে সমঝোতায় পৌঁছে তারা অভিযোগ প্রত্যাহার করেন। এছাড়া একই কারণে ২০১৮ সালে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয় সিফাতকে।

সিফাত ছাত্রলীগের সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয়ের অনুসারী ও ছাত্রলীগের সূর্য সেন হল শাখার উপ-দফতর সম্পাদক ইমরান সাগরের ‘ছোট ভাই’ হিসেবে পরিচিত।

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

বাছাইকৃত সংবাদঃ

Comments are closed.