ডিগ্রির তৃতীয় শিক্ষক: বাদপড়াদের আবেদন নেওয়া হচ্ছে - আজকের শিক্ষা || ajkershiksha.com

ডিগ্রির তৃতীয় শিক্ষক: বাদপড়াদের আবেদন নেওয়া হচ্ছে

SS iT Computer

ডিগ্রির তৃতীয় শিক্ষক: বাদপড়াদের আবেদন নেওয়া হচ্ছে: জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে এমপিওভুক্ত ডিগ্রি কলেজে ২০১০ থেকে ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে নিয়োগপ্রাপ্ত তৃতীয় শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ লক্ষ্যে গত ৭ নভেম্বর কয়েকটি শর্ত দিয়ে ৭৭০ জন তৃতীয় শিক্ষকের নামের তালিকা প্রকাশ করে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)। কিন্তু এই তালিকায় এমপিওভুক্তির শর্ত উপেক্ষা করে নানা ধরনের ভুল ও অসঙ্গতি রয়েছে। বঞ্চিত শিক্ষকদের অভিযোগ, মাউশির উদাসীনতায় সব শর্ত পূরণ হওয়া সত্ত্বেও তালিকায় দেশের বিভিন্ন স্থানের ৩ শতাধিক শিক্ষকের নাম অন্তর্ভুক্ত হয়নি।

এমপিওভুক্তির তালিকায় বাদ পড়া শিক্ষকরা জানান, মাউশির তালিকায় বিভিন্ন ধরনের অসঙ্গতি রয়েছে। এ তালিকায় এক নাম একাধিকবার প্রকাশ, ইতিপূর্বে সমন্বয়ের মাধ্যমে এমপিওভুক্ত শিক্ষকের নামও অন্তর্ভুক্ত, অনার্স-মাস্টার্স শিক্ষক, ননএমপিও ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক, সদ্য জাতীয়করণকৃত কলেজ শিক্ষকের নামও হয়েছে। এমপিওভুক্তির জন্য মনোনীত ৭৭০ জন শিক্ষকের তালিকায় দেখা গেছে- ৬, ৭, ৮নং তালিকায় প্রকাশিত ৪ জন শিক্ষকের নাম পুনরায় ৫৫২ থেকে ৫৫৫ নম্বরেও রয়েছে। একই তালিকায় ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া কলেজের ৭ জন শিক্ষকের নাম ৬৫ থেকে ৭১ নম্বরে থাকলেও পুনরায় তাদের নাম ৭২ থেকে ৭৮ নম্বরে উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়া ২১৭ থেকে ২২৩ পর্যন্ত তালিকার শিক্ষকদের নাম পুনরায় ২২৪ থেকে ২৩০ নম্বরে যুক্ত করা হয়েছে। তালিকার ৭৪৪ থেকে ৭৪৭ পর্যন্ত শিক্ষকদের নাম ফের ৭৫০ থেকে ৭৫৩ নম্বরে আছে। এ তালিকায় নীতিবহির্ভূতভাবে অনার্স-মাস্টার্সের শিক্ষক, সমন্বয়কৃত শিক্ষক, ২০১৭ সালে কমিটির মাধ্যমের নিয়োগকৃত শিক্ষকও রয়েছে।

বঞ্চিত শিক্ষকরা আরও জানান, এমপিওভুক্তির জন্য মাউশির সব শর্ত পূরণ থাকলেও তাদের নাম তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়নি। তারা ৮-১০ বছর ধরে বিনা বেতনে চাকরি করে আসছেন।

শিক্ষকদের দাবির বিষয়ে মাউশির (কলেজ-২) উপ-পরিচালক এনামুল হক হাওলাদার বলেন, বাদ পড়া শিক্ষকদের প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। এ বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

বাছাইকৃত সংবাদঃ

Comments are closed.