জেলহত্যা দিবস আজ - আজকের শিক্ষা || ajkershiksha.com

জেলহত্যা দিবস আজ

SS iT Computer

জেলহত্যা দিবস আজ: আজ রক্তঝরা জেলহত্যা দিবস । মানব সভ্যতার ইতিহাসে বেদনাবিধুর কলঙ্কের কালিমায় কলুষিত ৩ নভেম্বর। স্বাধীন বাংলাদেশে এ দিনটি চিরকাল কালোদিন হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকবে। এর আগে ১৫ আগস্ট কালো রাত্রিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নির্মম হত্যাকাণ্ডের মধ্যদিয়েই কলঙ্কময় অধ্যায়ের সূচনা হয়।

বাঙালী জাতিকে নেতৃত্বশূন্য করতে ৪৫ বছর আগে ১৯৭৫ খ্রিষ্টাব্দের ৩ নভেম্বর আজকের এইদিনে মধ্যরাতে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে অন্তরীণ জাতির চার সূর্যসন্তান ও মহান মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের প্রথম দায়িত্ব পালনকারী উপ-রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ, অর্থমন্ত্রী এম. মুনসুর আলী, খাদ্য ও ত্রাণ মন্ত্রী এ এইচ. এম কামারুজ্জামানকে হত্যা করা হয়।

জানা যায়, ১৯৭৫ খ্রিষ্টাব্দের অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ও জাতীয় নেতা তাজউদ্দীন আহমেদের সঙ্গে তাঁর পরিবারের সদস্যরা সাক্ষাৎ করতে গেলে তাজউদ্দীন আহমেদ বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে দেখা স্বপ্নের কথা উল্লেখ করে বলেন, আমাদেরকে আর বাঁচিয়ে রাখবে না। আমি মুজিব ভাইকে (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান) স্বপ্নে দেখেছি। বঙ্গবন্ধু আমাকে জড়িয়ে ধরে বললেন, তাজউদ্দীন তুমি চলে এসো, সেই ১৯৪৪ খ্রিষ্টাব্দ থেকে তোমার সঙ্গে আমার পরিচয়। তারপর থেকে আমরা দুজন এক সঙ্গে ছিলাম, এখন তোমাকে ছাড়া আর ভাল লাগে না। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকে স্বপ্ন দেখার বিষয়টি যে এত তাড়াতাড়ি তাঁর সামনে এমন নিষ্ঠুর ও ভয়ঙ্কর হয়ে আসবে, তা বোধহয় তিনি কখনও কল্পনাও করতে পারেননি। অথচ তাঁর স্বপ্নই সত্য হয়েছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, জাতীর চার সূর্যসন্তানকে হত্যার উদ্দেশ্য ছিল বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের বিজয় ও চেতনাকে নির্মূল করা। কিন্ত বাংলাদেশের মুক্তিকামী মানুষ সুদীর্ঘ লড়াই-সংগ্রাম আর আত্মত্যাগের বিনিময়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর খুনিচক্র এবং তাদের হত্যার রাজনীতিকে পরাজিত করেছে।

তিনি আরও বলেন, আজ এদেশের জনগণ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সব ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে ঐক্যবদ্ধভাবে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণের পথে এগিয়ে চলেছে।

দিবসটি উপলক্ষে প্রতিবারের ন্যায় এবারও আওয়ামী লীগ সমগ্র বাঙালি জাতির সাথে সশ্রদ্ধচিত্তে যথাযথ মর্যাদা ও বেদনার সাথে শোকাবহ এ দিবসটিকে স্মরণ করবে।

দলের বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে-

সূর্য উদয় ক্ষণে-বঙ্গবন্ধু ভবন এবং কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ সারাদেশে সংগঠনের সব কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ এবং কালো পতাকা উত্তোলন।

সকাল সাড়ে ৮টায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতি-বিজড়িত ধানমন্ডি ঐতিহাসিক বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ। এছাড়া ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ, সহযোগী সংগঠনসহ মহানগরের প্রতিটি শাখার নেতাকর্মীরা যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন।

সকাল ৯টায় বনানী কবরস্থানে ১৫ই আগস্টের কালরাতে নিহত ও কারাগারে নির্মমভাবে নিহত জাতীয় নেতৃবৃন্দের সমাধিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, ফাতেহা পাঠ, মিলাদ মাহফিল ও মোনাজাত। রাজশাহীতে জাতীয় নেতা শহীদ কামারুজ্জামানের কবরে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, ফাতেহা পাঠ, মিলাদ ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে।

সকাল ১১টায় জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউস কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানান, বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে এবার জেলহত্যা দিবসে সীমিত পরিসরে নানা কর্মসূচি পালিত হবে। কর্মসূচিতে সব সাংগঠনিক জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন শাখা এবং সব সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মী, সমর্থক এবং সর্বস্তরের জনগণকে যথাযথ মর্যাদা ও শোকাবহ পরিবেশে স্বাস্থ্যবিধি মেনে জেলহত্যা দিবস পালনের জন্য বিনীত আহ্বান জানিয়েছেন।

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

বাছাইকৃত সংবাদঃ

Comments are closed.